কিশোর অপরাধ দমনে র‌্যাবের টিভিসি

দেশে কিশোর অপরাধ দমনে মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে জনসচেতনতামূলক প্রচারণার অংশ হিসেবে টিভিসি উদ্বোধন করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন (র‌্যাব)।

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজধানীর মধুবাগে অবস্থিত বীর মুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামান খান কমপ্লেক্সে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এই টিভিসি উদ্বোধন করেন।

র‍্যাব মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুনের সভাপতিত্বে টিভিসি উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান নাছিমা বেগম, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দীন, পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ।

র‌্যাব মহাপরিচালক তাঁর বক্তব্যে বলেন, কিশোররা আগামী দিনের ভবিষ্যত। তারা যাতে বিপথগামী না হয় এজন্য অভিভাবক, শিক্ষকসহ সমাজের সব স্তরের লোককে এ বিষয়ে সচেতন হতে হবে। সম্প্রতি রাজধানী ঢাকাসহ কয়েকটি বিভাগীয় ও জেলা শহরে এলাকাভিত্তিক বিভিন্ন নামে/গ্রুপে কিশোর গ্যাং গড়ে উঠেছে। এলাকাভিত্তিক গড়ে ওঠা এসব কিশোর অপরাধীর অধিকাংশই উঠতি বয়সী কিশোর ও তরুণ।

কিশোর গ্যাংয়ের নেতিবাচক মূল্যবোধ যেমন আধিপত্য বিস্তার, অপরকে নিয়ন্ত্রণ, বীরত্ব প্রদর্শন, সম্মানহানি, অবৈধ উপায়ে অর্থ উপার্জনের কারণে ক্ষেত্র বিশেষে সহিংসতা ছড়াচ্ছে।

১৯৭০ সাল থেকে বিশ্বব্যাপী গ্যাং কালচার ব্যাপক সহিংসতার রূপ নেয়। বাংলাদেশে শুরু হয় ভিন্নদেশি সংস্কৃতির অনুকরণে গ্যাং কালচার। বেপরোয়া ভাব থেকে একসময় কিশোরদের মধ্যে হত্যা, মারামারি, মাদক সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণ, চাঁদাবাজি, ছিনতাই, কমিশন গ্রহণ, এলাকায় বৈধ/অবৈধ ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ, শ্লীলতাহানি/ইভটিজিং, সামাজিক হট্টগোল তৈরি করা, উচ্চস্বরে হর্ন বাজানোর প্রবণতা দেখা যায়। তারা বিভিন্ন উদ্ভট নাম ধারণ করে গ্যাং কালচারে লিপ্ত।

মূলত ২০১৭ সালে উত্তরায় আদনান হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে কিশোর গ্যাংয়ের সহিংসতার নির্মমতা জনসম্মুখে আসে। এ ঘটনার পর র‌্যাব কিশোর গ্যাংয়ের বিরুদ্ধে আভিযান শুরু করে। আদনান হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় র‌্যাব মূলহোতা তালাচাবি রাজু ও ডিসকো বয়েস গ্যাং গ্রুপের দলনেতাসহ ৮ জনকে গ্রেফতার করে।

র‌্যাব আরো জানায়, কিশোর গ্যাংয়ের আলোচিত হত্যাকাণ্ড রাজধানীর উত্তরখানের রাজবাড়ি বাহরেরটেক এলাকার স্কুলছাত্র হৃদয় হত্যা, টঙ্গী পূর্ব থানাধীন বিসিক ফকির মার্কেট মদিনা পাড়ার স্কুলছাত্র শুভ আহম্মেদ হত্যা, গাজীপুরের রাজদিঘির পাড় এলাকার নুরুল ইসলাম হত্যা, উত্তরখান রাজবাড়ির খ্রিস্টানপাড়া এলাকার মো. সোহাগ হত্যাসহ ৫টি হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় র‌্যাব অভিযান পরিচালনা করে হত্যাকাণ্ডগুলোর সঙ্গে জড়িত মূলহোতাসহ বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করে। গত ২০১৭ সাল থেকে এখন পর্যন্ত র‌্যাব ৩৭৩ জন কিশোর গ্যাং সদস্যকে আইনের আওতায় নিয়ে এসেছে।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কর্নেল কে এম আজাদ, বিবিএম, পিএসেসি, অতিঃ মহাপরিচালক (অপারেশনস্), র‌্যাব ফোর্সেস।


মন্তব্য করুন

Logo

© 2021 Dinkal24 All Rights Reserved.